নেতাজী সুভাষ চন্দ্র বসু

১৯০৮ সাল।  তখন বালক সুভাষ চন্দ্র বসু কটকের রাভ্যেনশ কলেজিয়েট স্কুলে ফোর্থ ক্লাসে পড়াশুনা করছেনপড়াশুনায় তিনি খুব ভাল ছিলেন প্রতি বৎসর তিনি ক্লাশে প্রথম স্থান অর্জন করতেনবাঙ্গলা ছাড়া অন্য সকল বিষয়েই তিনি দক্ষ ছিলেন। কারণ পাদ্রীদের স্কুলে বাঙ্গলা ভাষা শিক্ষা দেবার কোন ব্যবস্থাই ছিল নাএকবার ক্লাসে গরু সম্বন্ধে বাঙ্গলায় একটি রচনা লিখিতে দেওয়া হয়। নেতাজীলেখা গরু রচনাটির এক বর্ণও ঠিক হয় নাইশিক্ষক মহাশয় ক্লাসের মধ্যে তার রচনাটি পড়ে শোনালেন।…

বিস্তারিত

পূর্ণেন্দু দস্তিদার: অগ্নিযুগের বিপ্লবী

পূর্ণেন্দু দস্তিদারঅগ্নিযুগের বিপ্লবীসশস্ত্র বিপ্লবীকিংবদন্তি বিপ্লবী মাস্টারদা সূর্য সেনের বিপ্লবী সহযোদ্ধাতিনি ছিলেন মাস্টারদা সূর্য সেনের বিপ্লবী স্টুডেন ক্যাডারওতাঁর কাজ ছিল তরুণ যুবক ও ছাত্রদেরকে বিপ্লবী দলে এনে বিপ্লবীমন্ত্রে দীক্ষিত করাএমনকি নিজ দলের বিপ্লবীদেরকেও তিনি বিপ্লবী কর্মকাণ্ডের বিভিন্ন কলা-কৌশল বিষয়ে প্রশিক্ষণ দিতেন চট্টগ্রাম বিপ্লবী দলে পূর্ণেন্দু দস্তিদারই প্রথম নারীদের অন্তর্ভূক্ত করেনতখনকার দিনে সশস্ত্র বিপ্লবী দলে নারীদেরকে নানা কারণে নেয়া হতো নাতার মধ্যে একটা অন্যতম কারণ ছিল; বিপ্লবীরা নারী সংস্পর্শে এলে বিপ্লবী পথে-মতে জীবন উৎসর্গ করতে দিধা-দ্বন্দ্ব ভুগবেতিনি এধারণা পালটে দেনবিপ্লবী দলে তিনি কল্পনা দত্ত ও প্রীতিলতাসহ আরো অনেক নারীকে সংগঠিত করেনসূর্য সেন প্রথম দিকে বিপ্লবী দলে নারীদের অন্তর্ভূক্ত করার ব্যাপারে বাধা দিলেও শেষ পর্যন্ত তিনি তার সিদান্ত পরিবর্তন করে পূর্ণেন্দু দস্তিদারের কথা মেনে নেন।…

বিস্তারিত

প্রফুল্ল চাকী

     

প্রফুল্ল চাকী। নামটি বললেই আরকেটি নামের কথা সবার মনে পড়ে। সে নামটি হলো, ক্ষুদিরাম বসু। দুজন বিপ্লবীর নামনাম দুটি শুনলেই চেতনার আয়নায় ভেসে উঠে একটি ফাসিঁর দৃশ্য ও একটি রিভলভার দিয়ে মাথায় গুলি ছোড়ার দৃশ্য ও শব্দকিছুক্ষণের জন্য হলেও চেতনা স্তমিত হয়ে যায়সমস্ত শরীর-মন শিহরণে কেঁপে উঠেএ এক অদ্ভুদ ক্ষোভ আর গর্বের অনুভূতিভারত উপমহাদেশের ব্রিটিশবিরোধী স্বাধীনতা আন্দোলনের অন্যতম সর্বকনিষ্ঠ দুই বিপ্লবী।

    

বিস্তারিত

ব্রিটিশবিরোধী সশস্ত্র বিপ্লববাদী আন্দোলনের লড়াকু বিপ্লবী বাঘা যতীন: শেখ রফিক

বাঘা যতীন, একটি নামএকজন বিপ্লবীর নামবিপ্লবী বাঘা যতীন একজন বাঙালি বিপ্লবী ব্রিটিশবিরোধী সশস্ত্র বিপ্লববাদী আন্দোলনের দ্বিতীয় পর্বের সর্বাধিনায়ক। তিনি বাংলার সশস্ত্র বিপ্লববাদী দল যুগান্তর-এবং পরে সকল বিপ্লববাদী দলের প্রধান নির্বাচিত হয়েছিলেন জার্মানদের সহায়তায় ব্রিটিশ শাসনের অবসান ঘটানোর পরিকল্পনার উদ্যোগতা তিনি যতীন বেঁচে ছিলেন মাত্র ৩৬ বছরএই ছোট জীবনে তিনি তাঁর জীবন-সংগ্রাম দিয়ে ইতিহাসের পাতায় নাম লিখে গেছেনমানুষের স্বাধীনতা, অধিকার ও শোষণমুক্তির আন্দোলন যতদিন চলবে ততদিন তিনি বেঁচে থাকবেন, বেঁচে থাকবেন মানুষের মাঝেবেঁচে থাকবেন যুগ-যুগান্তরের ইতিহাসেমানুষের চেতনায় ও কর্মে জয়তু বিপ্লবী বাঘা যতীন।…

বিস্তারিত

চট্টগ্রামের বিপ্লবী ইতিহাসের মহানায়ক সূর্যসেন

১৯৩৪ সালের ১২ জানুয়ারিসন্ধ্যাবেলা। চট্টগ্রাম জেলে বসে সূর্যসেন খুব সচেতনভাবেই ভাবছেন রাত ১২ টা ১ মিনিট বাজতে আর মাত্র পাচ ঘন্টা বাকী। এই সময়টুকুই পার হওয়ার সাথে সাথে তাঁর এবং তাঁর সহকর্মী তারকেশ্বর দস্তিদারের জীবন প্রদীপ নিবিয়ে দেওয়া হবে। এক্ষেত্রে সিদ্ধান্ত পরিবর্তন হওয়ার কোনো সুযোগ নেই। রাত ১২ টা ১ মিনিটে ফাঁসির রজ্জু তাকে পড়তেই হবে। এটাই আইন। ব্রিটিশ সরকারের আইন। ব্রিটিশ সরকারের বিজ্ঞ আইনজ্ঞ জজের রায়।…

বিস্তারিত

অগ্নিযুগের মহাবিপ্লবী রাসবিহারী বসু

রাসবিহারী বসুভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামে অগ্নিযুগের সশস্ত্র বিপ্লবীদের একজন অন্যতম বিপ্লবীবাঘা যতীনের মতো একজন মহাবিপ্লবীব্রিটিশ শাসনের কবল থেকে দেশ মাতৃকাকে মুক্ত করার জন্য তিনি সারা জীবন বিভিন্ন দেশে হতে অস্ত্র, অর্থ সরবরাহ ও বিপ্লবী কর্মী তৈরীর কর্মযজ্ঞে নিয়েজিত ছিলেনতিনি ভারতবর্ষের স্বাধীনতা ও মুক্তির জন্য জীবনের শেষদিন পর্যন্ত বিপ্লবী আদর্শ ও কর্মকাণ্ডে যুক্ত ছিলেনমহাবিপ্লবী রাসবিহারী বসু ছিলেন আজাদ হিন্দ ফৌজএর প্রতিষ্ঠাতা।…

বিস্তারিত

বিপিন চন্দ্র পাল

ভারত উপমহাদেশের কংগ্রেসীয় রাজনীতির প্রগতিশীল গ্রুপের তিন দিকপাল ছিলেন। তারা হলেন লালা রাজপত রায়, বাল গঙ্গাধর তিলক ও বিপিন চন্দ্র পালউপমহাদেশের রাজনীতিবিদদের মধ্যে বিপিন চন্দ্র পালই একমাত্র বিরল প্রতিভার অধিকারী, যিনি একাধারে রাজনীতিবিদ, লেখক, সাংবাদিক ও সমাজ সংস্কারক তাঁর বাগ্মীতা ছিল অসাধারণ ব্রিটিশ সরকারের বিরুদ্ধে তিনি যে অনলবর্ষী বক্তৃতা দিতেন, তার আহবানে হাজার হাজার যুবক ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামে যুক্ত হয় এবং ঝাপিয়ে ড়ে তিনি ছিলেন চরমপন্থি রাজনীতির অন্যতম প্রধান প্রবক্তা।…

বিস্তারিত

মানবমুক্তির আন্দোলনের বিস্মৃত এক নক্ষত্রের নাম বীরেন্দ্রনাথ চট্টোপাধ্যায়আদি নিবাস ঢাকার অদূরে বিক্রমপুরের ব্রাহ্মণগাঁ গ্রামে হলেও শিক্ষাবিদ পিতা অঘোরনাথের কর্মস্থল হায়দ্রাবাদে তিনি জন্ম জন্মলাভ করেনমাদ্রাজ থেকে প্রবেশিকা ও কলিকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিএ পাশ করেন১৯০১ সালে আইসিএস পরীক্ষা দেওয়ার জন্য বিলাত যানসেখানে বীর সাভারকরের প্রভাবে বিপ্লবমন্ত্রে দীক্ষা নেনসিভিল সার্ভিস পাশ করতে না পেরে ব্যারিস্টার হবার চেষ্টা করেন১৯০৬ সালে নবীন তুর্কির কামাল আতাতুর্কের সঙ্গে তিনি পরিচিত হন এবং ভারতের জাতীয় আন্দোলনে সাহায্য চানএই বছর শ্যামাজী কৃষ্ণবর্মা প্রতিষ্ঠিত লন্ডনের ইন্ডিয়ান সোশিওলজিস্টপত্রিকা পরিচালনার প্রধান দায়িত্ব তাঁর ওপর পড়ে।…

বিস্তারিত

সতীশ পাকড়াশী

১৯০৫-০৬ সালবঙ্গভঙ্গ আন্দোলনে উদ্বেলিত সারাবাঙলাঢাকা জেলার হাইস্কুলগুলোতে সেই আন্দোলনের ঢেউ উপচে পড়ছে। ছাত্ররা এই আন্দোলন প্রভাবিত হল। বালক সতীশ ই আন্দোলনে যুক্ত হ চিনিসপুরকালীবাড়িতে হাজার হাজার মানুষ একসঙ্গে দাঁড়িয়ে শপথ নিলেন বঙ্গভঙ্গ রদ না হওয়া পর্যন্ত আমরা প্রতিরোধ আন্দোলন করে যাবজীবন দিয়েও এর প্রতিবিধান করববিলাতি জিনিস বয়কট করব আর স্বদেশী জিনিস ব্যবহার করব।…

বিস্তারিত

হেরাম্বলাল গুপ্ত

হেরাম্বলাল গুপ্ত। ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামে অগ্নিযুগের সশস্ত্র বিপ্লবীদের একজন অন্যতম বিপ্লবী। রাসবিহারী বসুর মতো একজন মহাবিপ্লবী। দিল্লী-লাহোর ষড়যন্ত্র পরিকল্পনার অন্যতম নায়কব্রিটিশ শাসনের কবল থেকে দেশ মাতৃকাকে মুক্ত করার জন্য তিনি সারা জীবন বিভিন্ন দেশে হতে অস্ত্র সরবরাহ ও বিপ্লবী কর্মী তৈরীর  কর্মযজ্ঞে নিয়েজিত ছিলেনতিনি ভারতবর্ষের স্বাধীনতাকে প্রধান্য দিয়ে সমগ্র এশিয়ার মুক্তির জন্য জীবনের শেষদিন পর্যন্ত বিপ্লবী আদর্শ ও কর্মকাণ্ডে যুক্ত ছিলেন ক্ষমতালাভ বা কোনো প্রকার ব্যক্তি স্বার্থের ধ্যান-ধারণা তার মধ্যে ছিল না। তিনি ছিলেন ঋষি অরবিন্দ ঘোষ, নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু, রাসবিহারী বসু, এ.এম.রায় প্রমুখের মতো জাতীয়তাবাদী, দেশপ্রেমিক ও স্বাধীনসত্ত্বার অধিকারী।…

বিস্তারিত
© 2017. All Rights Reserved. Developed by AM Julash.

Please publish modules in offcanvas position.